What is Domain Name_ITNutHostingBD

ডোমেইন কি এবং কে প্রথম ডোমেইন নাম রেজিস্ট্রেশন করেছিলেন?

 

আসসালামু আলাইকুম, আশা করি সবাই ভাল আছেন ।

অনেকেরই মনে প্রশ্ন আছে “ডোমেইন কি ?” এবং কে প্রথম ডোমেইন নাম রেজিস্ট্রেশন করেছিলেন? এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চাই। তো যারা ইন্টারনেট জগতে নতুন কিংবা প্রশ্ন করে থাকেন “ডোমেইন কি ?” এবং কে প্রথম ডোমেইন নাম রেজিস্ট্রেশন করেছিলেন? আজকে তাদের জন্য একটা বিস্তারিত পোস্ট দিলাম। আশা করছি পোস্টটি পড়ার পর ডোমেইন সম্পর্কে আপনার যত প্রশ্ন আছে তা সহজেই পরিস্কার হয়ে যাবে।

এবার আলোচনাই আসি, ডোমেইন (Domain) একটি ইংরেজি শব্দ  এর বাংলা অর্থ হলো স্থান বা ঠিকানা যা ইন্টারনেট জগতে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। মূলত, ডোমেইন নাম বলতে সাধারনভাবে কোন একটা ওয়েবসাইটের নামকে বোঝায়।

ধরুন, আপনি একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান করলেন এবং একটি সুন্দর ও ইউনিক নাম দিলেন যাতে করে মানুষ সহজেই বুঝতে পারে আপনি কি ধরনের সেবা দিতে চাচ্ছেন। পরবর্তীতে মানুষজন যখন আপনার সেবা নিতে যাবে তখন আপনার দেওয়া নামের মাধ্যমে সহেজেই আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান কে খুজে পাবে । উদাহরণ স্বরূপ বলা যায়ঃ — প্রথমআলো, প্রান, RFL, তীর, যমুনা, বসুন্ধরা এর কথা। এগুলো মূলত এক একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এর নাম যা দেখে আমরা সহজেই বুঝতে পারি তারা কি ধরনের সেবা দিয়ে থাকে এবং কিভাবে মানুষজন তাদের ঠিকানা সহজেই খুঁজে পায়।

ঠিক যে নামের মাধ্যমে আপনার পছন্দের ওয়েবসাইটটি মানুষ জন খুজে পাবে সেটাই হলো ডোমেইন। এই ডোমেইন নামই আপনার ওয়েবসাইটকে অনন্যভাবে আইডেন্টিফাই করবে এবং সেই সাথে সবাই এ নাম ব্যবহার করে আপনার ওয়েবসাইটটিকে চিনবে এবং একসেস করবে ।

what is domain

প্রত্যেক ওয়েবসাইটের একটি নির্দিষ্ট আইপি অ্যাড্রেস (IP Address) থাকে। যেমনঃ 66.220.159.255. সাধারণত আইপি অ্যাড্রেস দিয়ে ওয়েবসাইট মনে রাখা কষ্টসাধ্য। তাই মনে রাখার সুবিধার জন্য আইপি অ্যাড্রেসের পরিবর্তে ডোমেইন নাম ব্যবহার করা হয়। এছাড়া এক বা একাধিক কম্পিউটার কে ইন্টারনেট এ চেনার জন্যও ডোমেইন নাম ব্যবহার করা হয়।

চলুন, আমরা ডোমেইন নাম এর কিছু ব্যবহার দেখে নেইঃ- https://www.google.com/ – https://www.youtube.com/ – https://www.facebook.com/ – এখানে গুগল, ইউটিউব ও ফেসবুক কে আমরা সাধারণত আইপি অ্যাড্রেস দিয়ে ওয়েবসাইট মনে রাখা কষ্টসাধ্য হওয়ার কারনে ডোমেইন নাম দিয়ে সহজেই খুঁজে পাই।

ডোমেইন শুধুমাত্র .com Extension দিয়েই হবে সেরকম নয়। মূলত উদ্দেশ্য উপর ভিত্তি করে এগুলো ব্যবহার করা হয়ে থাকে। আশা করি নিচের উদাহরণ গুলো দেখলে বুঝতে পারবেন। যেমনঃ

সাধারন কাজ বা ব্যবসার জন্য .com (https://www.itnuthosting.com/) Extension ব্যবহার করা হয়।
অরগানাইজেশনের এর জন্য .org (https://www.wikipedia.org/) Extension ব্যবহার করা হয়।
এডুকেশনাল-শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এর জন্য .edu ( https://www.harvard.edu/) Extension ব্যবহার করা হয়।
গভর্নমেন্টাল-রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান এর জন্য .gov (https://www.bluehouse.gov/) Extension ব্যবহার করা হয়।
ইনফরমেশন সাইটের জন্য এর জন্য .info (http://www.bangladesh.info/) Extension ব্যবহার করা হয়।
নেটওয়ার্কিং সাইটের জন্য এর জন্য .net (https://www.soundtrack.net/) Extension ব্যবহার করা হয়।

উপরে যেসব ডোমেইনের এর কথা বলা হয়েছে সেগুলোর সবই Top Level ডোমেইন। আপনি যদি এগুলো আপনার ওয়েবসাইটে ব্যবহার করতে চান তাহলে আপনাকে টাকা দিয়ে Registration বা কিনতে হবে। প্রোভাইডার ভেদে ডোমেইন এর দাম কম বেশি হয়ে থাকে । সাধারনত এই সব ডোমেইন এর মূল্য ৮০০-১২০০ টাকার মধ্যে হয়ে থাকে এক বছরের জন্য। তবে যারা এক বছরের জন্য কিনে থাকেন তাদের কে ট্রেড লাইছেন্স এর মতো প্রতি বছর রিনিউ করতে হয়।

এছাড়া, সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে ব্যাবহারকারীদের সুবিধা মাথায় রেখে বিভিন্ন ধরনের Extensions এসেছে । চাইলে Targeted Niche Select করেও নির্ধারিত Extensions নেয়া যায়। যেমন .health; .club; .fun; .cat; .design; .shop; .service ইত্যাদি।

ইন্টারনেটে যত ওয়েবসাইট রয়েছে তার ৫২ শতাংশই .COM ডোমেইন ও অন্যান্য ডোমেইন নিয়ে বিভিন্ন Werbsite অথবা Bolg তৈরি করা হয়েছে। তার মানে হলো মানুষ সাধারণভাবেই এটি ভেবে থাকেন, যে কোন ওয়েবসাইট একটি .COM ডোমেইন Extensions দিয়ে শেষ হয়। তাই যদি আপনার সুযোগ থাকে তাহলে .COM ডোমেইন Extensions ব্যবহার করাই আপনার জন্য সঠিক হবে।পছন্দ মতো Domain Extensions নির্বাচন করতে Visit করতে পারেন।

যিনি প্রথম ডোমেইন নাম রেজিস্ট্রেশন করেনঃ

প্রথম বানিজ্যিক ডোমেইন নাম TLD .com , ১৫ মার্চ ১৯৮৫ সালে প্রথম বাণিজ্যিক ভাবে ডট কম ডোমেন (.com Domain) নাম ক্যাম্ব্রিজের কম্পিউটার ফার্ম সিম্বোলিক্স তাদের ওয়েব সাইট Symbolics.com এ ব্যবহার করে। পরবর্তীতে, ডিসেম্বর, ২০০৯ সালে তারা ১৯০ মিলিয়ন ডোমেইন নেম রেজিস্ট্রেশন করে।

আশা করছি আজকের আলোচনা আপনাদের অনেক সাহায্য করবে । “সাব ডোমেইন কি এবং সাব ডোমেইনের সুবিধা ও অসুবিধা গুলো কি কি ?”  এ বিষয়ে জানতে এখানে ক্লিক করুন

পরিশেষে, লেখা গুলো পড়ে ভালো লাগলে অবশ্যই অন্যান্যদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না । আপনার সুচিন্তিত মতামত আমাদের একান্ত কাম্য। তাই এই বিষয়ে আপনার যদি কোন মতামত থেকে থাকে তাহলে অবশ্যই নিচে কমেন্ট করে জানাবেন। আমরা আনন্দের সহিত আপনার মতামত গুলো পর্যালোচনা করে রেপ্লাই দেওয়ার চেষ্টা করবো।

“Help People’s who are really helpless. Because,

Helping People’s are the best People in the World.”

You May Also Like